কিনেই ফেলুন আপনার স্বপ্নের গাড়িটি; তবে জেনে নিন গুরুত্বপূর্ণ এই ৯টি তথ্য

0
948
Image Source: Facebook.com

আপনার প্রথম গাড়ি কেনা আনন্দদায়ক হতে পারে, কিন্তু সেজন্য লক্ষ্য রাখতে হবে কিছু বিষয়ে।  এটি আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রক্রিয়াটিকে সহজ করবে এবং সেরা গাড়িটি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে আপনাকে সাহায্য করবে।  তো প্রথম গাড়ি কেনার আগে আপনাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মনে রাখতে হবে।

 

১. প্রথমেই জানতে হবে আপনার অবস্থা ও চাহিদাঃ

আপনার জীবনধারা এবং আপনার চলার পথে যে সব পরিস্থিতির সম্মুখীন হন সেগুলোকে পর্যালোচনা করুন।  আপনার আর্থিক অবস্থার দিকেও লক্ষ্য করুন।  আপনার সার্বিক অবস্থার পর্যালোচনা করে সঠিক গাড়িটি নির্বাচন করাই প্রথম পদক্ষেপ।

 

২. আপনার সঠিক আয় ব্যয়ের হিসাব নির্ধারণ করুণঃ

আপনার প্রথম গাড়িটি কেনার পর গাড়ির মাসিক কিস্তি প্রদান করতে গিয়ে আপনার ব্যক্তিগত খরচ গুলো ভুলে যাওয়া যাবেনা। আপনার আয় ব্যয়ের মধ্যে রক্ষনাবেক্ষন, বীমা,গ্যাস এবং মেরামতের খরচগুলো অবশ্যই রাখতে হবে। এগুলো ছাড়াও গাড়ির জন্য যে সব অতিরিক্ত খরচ করতে হয় তা সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে।

 

৩. আপনার ক্রেডিট স্কোর সম্পর্কে জানুনঃ

গাড়ির ঋণ পরিশোধের ক্ষেত্রে আপনাকে কি পরিমান সুদ দিতে হবে তা নির্ধারণ করতে ক্রেডিট স্কোর আপনাকে সাহায্য করবে।  সুবিধাজনক সুদ পেতে  আপনার জমার পরিমান আপনাকে সাহায্য করতে পারে, যেটা কিনা আপনার গাড়ি কেনার সম্পূর্ণ বাজেটের উপর প্রভাব ফেলতে পারে।  আপনি ক্রেডিট কার্ড প্রদানকারীর মাধ্যমেও বিনামূল্যে আপনার ক্রেডিট স্কোর জানতে পারবেন।

 

৪. প্রাথমিক কিস্তি প্রদানঃ

সাধারণত গাড়ী কেনার ক্ষেত্রে ব্যাংক নির্ধারিত প্রাথমিক কিস্তি প্রদান করতে হয়।  কি পরিমান প্রাথমিক কিস্তি প্রদান করতে হবে তা ব্যাংক নির্ধারন করে দেয়।  একেক ব্যাংক একেক ধরনের প্রাথমিক কিস্তি ধার্য করে থাকে।  এক্ষেত্রে আপনাকে খোয়াল রাখতে হবে কোন ব্যাংক সর্বনিমন প্রাথমিক কিস্তিতে গাড়ী ক্রয়ের সুবিধা দিচ্ছে।  এই প্রাথমিক কিস্তির উপরে আপনার মাসিক কিস্তির পরিমান নির্ভর করে।

 

৫. ঋণের জন্য আবেদনঃ

আপনার অর্থ ও সম্পত্তির পরিমান বিবেচনা করে ও আপনার আয় ব্যায়ের হিসাব পর্যালোচনা করে আপনি ঋণের জন্য আবেদন করতে পারেন।  তার আগে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে আপনি কত টাকার মধ্যে গাড়ি ক্রয় করতে চাচ্ছেন।  এতে আপনার কি পরিমান ঋণ নিতে হবে এবং এর সুদের হার কি পরিমানে আসবে তার ধারনা পেয়ে যাবেন।

 

৬. গাড়ি ক্রয়ের জন্য ইন্টারনেটের ব্যবহারঃ

আপনার বাবামা এর সময়ের চাইতেও প্রথম গাড়ি কেনাটা এখন আপনার জন্য অনেক বেশী সহজ, যেমনঅনলাইন বা ইন্টারনেট আপনার ক্রয় সীমার মধ্যে আপনাকে অসংখ্য গাড়ি খুঁজে দেয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে; যেটা কিনা আপনার প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম।

 

৭. একবার ব্যবহার করে দেখুনঃ

আপনি যখন আপনার পছন্দসই গাড়ি নির্বাচন করে ফেলবেন, তখন একবার নিজেই চালিয়ে দেখুন না কেমন বোধ করছেন।  

এভাবেই আপনি আপনার পচন্দসই গাড়িটি দেখে-শুনে বা চালিয়ে বেঁছে নিতে পারেন।

 

৮. গাড়ির তথ্য গুলো জানুনঃ

যখন নতুন গাড়ি কিনতে যাবেন তখন কিছু শোরুমে গিয়ে গাড়ি গুলোর দাম সম্পর্কে ধারণা নিন।  আর আপনি যদি ব্যবহৃত বা রিকন্ডিশন গাড়ি কিনতে চান তাহলে গাড়ির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানুন এবং এর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ভালোভাবে দেখে নিন।

 

৯. চুক্তি সম্পাদন:

আপনি উপরোক্ত সকল বিষয় জানা-শোনার পরে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন আপনি কি ধরনের গাড়িটি চান বা আপনার টাকার পরিমানটা কত।  তাই এখনি আপনার গাড়ি কেনার বিষয়ে চুক্তি ও দরকষাকষির ব্যাপারে নেমে যান।  আর অবশ্যই চুক্তি সইয়ের আগে সকল শর্তাবলি জেনে ও বুঝে নেবেন।